ইসলাম ধর্ম ত্যাগ করে বিয়ে করলেন কলকাতার অভিনেত্রি নুসরাত

কলকাতার মুসলিম অভিনেত্রী নুসরাত জাহান ধর্মান্তরিত হয়ে সাত পাঁকে বাঁধা পড়েছেন নিখিল জৈন নামের এক হিন্দু ধনকুবেরের সঙ্গে। সম্প্রতি ভারতে অনুষ্ঠিত লোকসভা নির্বাচনের সর্বভারতীয় তৃণমূল কংগ্রেসর বসিরহাট লোকসভা কেন্দ্রের জনপ্রিয় প্রার্থী হিসেবে বিজয়ী হওয়ার পর তিনি এ বিয়ে সম্পন্ন করেন। ১৯ জুন, বুধবার তুরস্কের বোদরুম শহরে ব্যবসায়ী নিখিল জৈনের সঙ্গে বিবাহ সম্পন্ন হয় নুসরতের। বিয়ের পর ইতিমধ্যেই প্রকাশ্যে এসেছে নব-দম্পতির প্রথম ছবি। বিয়ে হয়েছে বর এবং কনে – দুই পক্ষের প্রথা মেনেই। টলিউড থেকে উপস্থিত ছিলেন সতীর্থ তথা প্রিয় বান্ধবী মিমি চক্রবর্তী। কলকাতায় ফিরে আইনি মতে বিয়ে সারবেন দম্পতি। টলিউডের বন্ধুদের জন্য কলকাতার আইটিসি রয়েল বেঙ্গলে ৪ জুলাই রিসেপশন পার্টি হবে। বোদরুমে উপস্থিত ছিলেন নিখিল-নুসরতের ঘনিষ্ঠ বন্ধুবান্ধব ও আত্মীয়স্বজন।

বিয়ের জন্য নিখিলের কোম্পানি থেকে বিশেষভাবে ডিজাইন করা পোশাক আনা হয়েছিলো নুসরাতের জন্য। নুসরাতের জুতার ডিজাইন করেছেন কলকাতার বিশিষ্ট জুতার ডিজাইনার রোহন অরোরা। তুরস্কের উদ্দেশে উড়ে যাওয়ার আগের দিনই গায়ে হলুদের ছবি শেয়ার করেছিলেন নুসরাত। ‘ফাদারস ডে’ উপলক্ষে বাবার জন্য আবেগঘন বার্তাও ছিল সেই ছবির ক্যাপশনে। নিখিলের সঙ্গে শহর ছাড়ার আগের দিন গায়ে হলুদের আসরে বাবাকে জড়িয়ে ধরে শিশুসুলভ কান্নায় ভেঙে পড়েন নুসরাত।

২০১০ সালে ফেয়ার ওয়ান মিস কলকাতা নামক একটি সুন্দরী প্রতিযোগীতায় বিজয়ী হন নুসরাত জাহান। তার সৌন্দর্যের কারণে তিনি মডেলিং-এ সুযোগ পান। এরপর তিনি জিতের বিপরীতে এবং রাজ চক্রবর্তীর পরিচালনায় `শত্রু‘ চলচ্চিত্রে অভিনয় করে পশ্চিম বাংলায় সুপরিচিত হন।

এর প্রায় দুই বছর পর মুক্তি পায় দেবের বিপরীতে এবং রাজিব বিশ্বাস পরিচালিত তার দ্বিতীয় ছবি `খোকা ৪২০‘। এই চলচ্চিত্রটির অত্যধিক জনপ্রিয়তা তাকে সাফল্যের অন্যতম শিখরে নিয়ে যায়। এরপর মুক্তি পায় অঙ্কুশ হাজরার বিপরীতে `খিলাড়ি‘ ছবিটি। তিনটি ছবিতেই এসকে মুভিজ প্রযোজনা করে।  নুসরাত জাহান একের পর এক ব্লকবাস্টার দর্শকদের উপহার দিয়ে গেছেন। 

Share On