অবশেষে চট্টগ্রামে প্রথম চিটাগাং ভাইকিংসের জয়।

স্পোর্টস ডেস্ক

নিজভূমে নিজেদের হারিয়ে খোঁজা চিটাগং ভাইকিংস চট্টগ্রাম পর্বে নিজেদের শেষ ম্যাচে ঢাকা ডায়নামাইটসের মুখোমুখি হয়েছে। গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে টসে জিতে আগে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন চিটাগং অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম। শুরুটা হয় আশা জাগানিয়া। শুভসূচনা এনে দেন মোহাম্মদ শাহজাদ ও ক্যামেরন ডেলপোর্ট। দারুণ খেলছিলেন তারা। তবে হঠাৎই ছন্দপতন। সুনিল নারাইনের বলে নুরুল হাসানের স্ট্যাম্পিং হয়ে ফেরেন দুর্দান্ত খেলতে থাকা শাহজাদ। ফেরার আগে ১৫ বলে ৩ চার ও ১ ছক্কায় ২১ রান করেন তিনি।

দ্বিতীয় উইকেটে ইয়াসির আলিকে নিয়ে এগিয়ে যান ডেলপোর্ট। একপর্যায়ে জমে ওঠে তাদের জুটি। দুজনের মধ্যে বেশ বোঝাপড়া গড়ে ওঠে। ধরার বল ধরেন,খারাপ বল পেলেই বাউন্ডারিছাড়া করেন। ফলে দুরন্ত গতিতে এগিয়ে যায় চিটাগং। তবে আচমকা পথ হারান ইয়াসির। নারাইনের বলে ছক্কা হাঁকাতে গিয়ে বির্চের হাতে ধরা পড়েন তিনি। ইনফর্ম এ ব্যাটসম্যান করেন ২০ বলে ২ চারে ১৯ রান।

পরে মুশফিককে নিয়ে খেলা ধরেন ডেলপোর্ট। যোগ্য সঙ্গও পান তিনি। প্রথমে নিজেদের মধ্যে বোঝাপড়া গড়ে তোলেন। উইকেটে সেট হলেই ছোটাতে শুরু করেন স্ট্রোকের ফুলঝুরি। এতে উল্কার গতিতে ছোটে চিটাগং। পথিমধ্যে ফিফটি তুলে নেন ডেলপোর্ট। পঞ্চাশ ছোঁয়ার পর আরো বিধ্বংসী হয়ে ওঠেন তিনি। সমান তালে রানের ফোয়ারা বইয়ে দেন মুশফিক। ফলে বড় সংগ্রহের পথে থাকে চিটাগং।

তবে অধিনায়ক থামতেই কক্ষচ্যুত চাটগাঁ। আন্দ্রে রাসেলের বোলিং তোপে পড়ে তারা। ইনিংসের শেষ ওভারের প্রথম বলে শুভাগত হোমের ক্যাচ বানিয়ে মুশফিককে ফেরান তিনি। সাজঘরে ফেরত আসার আগে ২৪ বলে ৪ চার ও ২ বিশাল ছক্কায় ৪৩ রানের নান্দনিক ইনিংস খেলেন মুশি। পরের বলে একই ফিল্ডারের তালুবন্দি করে রানের নহর বইয়ে দিতে থাকা ডেপোর্টকে ফিরিয়ে হ্যাটট্রিকের সম্ভাবনা জাগান ক্যারিবীয় পেসার। ড্রেসিংরুমের পথ ধরার আগে ৫৭ বলে ৫ চার ও ৪ ছক্কায় ৭১ রানের বিস্ফোরক ইনিংস খেলেন এ ব্যাটার। তৃতীয় বলে দাসুন শানাকাকে মিজানুর রহমানের ক্যাচে পরিণত করে হ্যাটট্রিক পূরণ করেন তিনি।

এবারের বিপিএলে এটি তৃতীয় হ্যাটট্রিক। এর আগে ওয়াহাব রিয়াজ ও আলিস আল ইসলাম অনন্য হ্যাটট্রিক করেন। রাসেলের হ্যাটট্রিকের পরও ফাইটিং স্কোর পেতে সমস্যা হয়নি চট্টলার। শেষ পর্যন্ত নির্ধারিত ওভারে ৫ উইকেটে ১৭৪ রানের স্কোর গড়ে দলটি। ঢাকার হয়ে রাসের ৩টি ও নারাইন নেন ২ উইকেট।

Share On