ওসি চূয়াডাঙ্গা সদর থানার হস্তক্ষেপে নিরসন হলো দুই পক্ষেরে ৫০ বৎসরের রক্তক্ষয়ী বিবাদ…

চুয়াডাঙ্গা থানাধীন মোমিনপুর ইউনিয়নের সরিষাডাঙ্গা গ্রামের মোঃ আহসান, পিতা-মৃত হোসেন আলী এবং জেহের আলী, পিতা-মৃত ফকির চাঁদ পক্ষের মধ্যে চলাচলের রাস্তা নিয়ে প্রায় ৫০ বছরের দ্বন্দ্ব নিরসন হলো চুয়াডাঙ্গা থানা পুলিশের কঠোর প্রচেষ্টা এবং হস্তক্ষেপের মাধ্যমে। উক্ত রাস্তা নিয়ে দুই পক্ষ মাঝে মধ্যেই রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে মেতে ওঠে।

 

[simple_text_ad headline=”বুড়িগঙ্গায় আহাজারি | লঞ্চ দুর্ঘটনার সেই ভয়াবহ মুহূর্তটি (ভিডিও)” message=”” button_text=”মুন্সিগঞ্জ কাঠপট্টি থেকে প্রায় ১০০ জন যাত্রী নিয়ে লঞ্চটি ঢাকায় আসছিল।” button_url=”https://www.theworldbd.com/national/6530/” button_color=”#FC5E18″ new_tab=”true”]

চার যুগ ধরে দু’পক্ষের এই দ্বন্দ্ব সংঘর্ষে শতাধিক মানুষ গুরুতর আহত হয় এবং অনেকেই পঙ্গুত্ব বরণ করেন।বিষয়টি চুয়াডাঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ জনাব আবুজিহাদ ফকরুল আলম খানের কোমল হৃদয়কে নাড়া দিলে, তিনি সাব-ইন্সপেক্টর ভবতোষ রায়, সুমন সরকার ও লিয়াকত আলীর সমন্বয়ে একটি টিম তৈরী করেন। তিনি দুই পক্ষের মধ্যে সৃষ্ট সংঘর্ষে উদ্ভূত পঞ্চাশের উপর দেওয়ানি ও ফৌজদারি মামলা গুলো পর্যালোচনা করেন এবং মোমিনপুর ইউনিয়নের সর্বজনবিদিত ও চিহ্নিত এই সমস্যাটি নিরসনকল্পে স্থানীয় চেয়ারম্যান সহ ইউনিয়নের গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে উভয় পক্ষের শুনানি শেষে কার্যকর ও নির্ভরযোগ্য বেশ কিছু পয়েন্ট পর্যালোচনা করে সমাধানের পথ বের করেন। উপস্থিত সকল পক্ষ নির্বিঘ্নে তা মেনে নেন । যাহার ফলে নিরসন হলো তিন পুরুষের মধ্যে চলে আসা দীর্ঘদিনের বিবাদ। বর্তমানে এলাকায় এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে শান্তির সুবাতাস বইছে। এলাকার মানুষ জেলা পুলিশের কর্মকান্ড কে ভূয়শী প্রশংসা করেন।

Share your love