চুয়াডাঙ্গা করোনা ভাইরাস সৃষ্ট সংকটের কারণে কর্মহীন মানুষেরা যেন অভূক্ত না থাকে এজন্য জেলা প্রশাসনের উদ্যোগ।


মোঃতারিকুর রহমান :চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি।
চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসন বলেন এখন পর্যন্ত এ জেলায় ৪৪৩২৫ টি পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দেওয়া হয়েছে এবং এ কার্যক্রম চলমান থাকবে। করোনা ভাইরাস সৃষ্ট সংকটকালীন পরিস্হিতি মোকাবেলায়  সোনালী ব্যাংক কোর্টবিল্ডিং শাখায় “করোনা সহায়তা তহবিল” নামে একটি হিসাব খোলা হয়েছে যার হিসাব নং–৩১১২০০২০০০০৭৬। 

এই জেলা ও জেলার বাইরের বিত্তশালী ব্যক্তিবর্গ এই সহায়তা তহবিল দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জন্য সহায়তা প্রদান করতে পারেন। করোনা ভাইরাসের কারণে সৃষ্ট এই দূর্যোগকালীন সময়ে যারা দিন আনে দিন খায় এমন কোন মানুষ যেমন. চায়ের দোকানদার, ফেরীওয়ালা, রেস্টুরেন্ট শ্রমিক, পরিবহন শ্রমিক, ভ্যান গাড়ি চালক, দিন মজুর, ভিক্ষুক, ভবঘুরে,সেলুনের কর্মচারি- যাতে অভূক্ত না তাকে এজন্য তাদের কাছে খাদ্যসামগ্রী পৌছে দিতে জেলা প্রশাসন,উপজেলা প্রশাসন, জনপ্রতিনিধিবৃন্দ, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ,স্হানীয় সরকার প্রতিষ্ঠান(পৌরসভা, ইউনিয়ন পরিষদ),স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন,আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীসহ সবাই নিরলস কাজ করে যাচ্ছে। আমরা সবার বাড়ি বাড়ি ত্রাণ সহায়তা পৌছে দিচ্ছি।

 এছাড়া ফোন কলের ভিত্তিতে যাচাইপূর্বক আমরা এ জেলায় এ পর্যন্ত ৪০০ টিরও অধিক পরিবারকে ত্রাণ সামগ্রী পৌছে দিয়েছি। বিশ্বব্যাপী এই সংকট মোকাবেলায় আপনিও  আপনার সাধ্যমত আপনার  অস্বচ্ছল আত্মীয়-স্বজন, পাড়া প্রতিবেশীর হক আদায় করুন, তাদের ঘরে খাবার আছে কিনা খোঁজ নিন, না থাকলে আপনার সামর্থ্য অনুযায়ী তাদেরকে খাবার ও আর্থিক সহায়তা দিন। আপনি যদি তাদেরকে সাহায্য করতে নাও পারেন তবে আমাদের উপজেলা ভিত্তিক হটলাইনে প্রদত্ত  নম্বরে ঠিকানা উল্লেখপূর্বক যোগাযোগ করে তাকে খাবার পেতে সহায়তা করুন। অযথা কোন ভূল তথ্য দিয়ে বিভ্রান্তি ছড়াবেন না।

 আপনি যদি এর কোনটিই না পারেন তবে নিরাপদে বাড়িতে অবস্হান করুন এবং সবার জন্য যার যার ধর্ম অনুযায়ী মহান সৃ্ষ্টিকর্তার কাছে প্রার্থনা করুন।নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য ও ঔষধ ক্রয় ও জরুরী প্রয়োজন ব্যতীত কোনভাবেই অকারণে বাইরে বের হয়ে নিজেকে ও পরিবারকে ঝুঁকির মুখে ফেলবেন না। যাচাই না করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম বা ফোনে ছড়ানো কোন গুজবে বিশ্বাস করবেন না, প্রযুক্তির দায়িত্বশীল ব্যবহার  নিশ্চিত করুন।মনে রাখবেন,আপনারা সহযোগিতা করলে আমরা করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত এ দূর্যোগ পাড়ি দিয়ে স্বাভাবিক সময়ে ফিরবই, ইনশাল্লাহ।

Share your love