চুয়াডাঙ্গায় জমি নিয়ে সংঘর্ষ।কৃষকের মৃত্যু।


মো:তারিকুর রহমান, চুয়াডাঙ্গা : চুয়াডাঙ্গার হায়দারপুরে সরকারী জমি অবৈধভাবে দখল করে মালিকানা জমির উপর নবগঙ্গা নদী খননকে কেন্দ্র করে খাল পাড়ের দুই জমির মালিকের মধ্যে বিরোধের জের ধরে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। শুক্রবার (৩ এপ্রিল) দুপুরে উভয়পক্ষের সংঘর্ষে দুই ভাইসহ ৩ জনকে কুপিয়ে জখম করার অভিযোগ ওঠে অবৈধ সরকারি  জমির দখলদার সলক মিয়ার বিরুদ্ধে । সন্ত্রাসী ভাড়া করে এনে প্রতিপক্ষকে কুপিয়ে জখম  করা হয়েছে এমন অভিযোগ করে করে স্থানীয় এলাকাবাসী   ।

জানা গেছে, চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার হায়দার পুর গ্রামে নবগঙ্গা নদীর খনন কাজ চলছিল। এই সময় গোপালনগর গ্রামের মৃত আওলাদ মালিতার ছেলে সলক মালিতা সরকারী জমি দখল করে নদী খননের কাজে বাঁধা  দেয়। খাল খননের সময় তার দখলকৃত জমি রেখে অপর গ্রামের মালিকানা জমির ওপর দিয়ে খাল খননের কাজ চালাতে হুমকি দেয়। এই সময় হায়দারপুর গ্রামের লোকজন  সলক মিয়ার অবৈধ কাজে প্রতিবাদ করায়,  সন্ত্রাসী ভাড়া করে এনে হায়দারপুর গ্রামের লোকজনের উপর হামলা চালায়। হামলা চালানোর সময় সন্ত্রাসীরা দেশীয় রামদা, হাত কুড়াল, ধাঁরালো ছুরি ও রড ব্যবহার করে। এতে দুই ভাই হায়দারপুর গ্রামের মৃত শুকুর আলি মালিতার ছেলে সিদ্দিকুর রহমান যদু ও রেজাউল করিম মদু সহ একই গ্রামের মৃত সমশের মল্লিকের ছেলে রেজাউল হক পুটে মারাত্নকভাবে জখম হয়। আহত ব্যাক্তিদের আশঙ্কাজনক অবস্থায় উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে দুই ভাইয়ের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাদেরকে রাজশাহী মেডিকেল হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়েছে। এ ঘটনায় রবিবার আনুমানিক সকাল ১০ টার দিকে মৃত্যুবরন করেন রেজাউল করিম মদু।
গুরুতর আহত ব্যাক্তিদের স্বজনরা বাদী হয়ে হয়ে সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে চুয়াডাঙ্গা সদর থানায় মামলা করেছেন।
ঘটনার এ বিষয়ে চুয়াডাঙ্গা সদর থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ আবু জিহাদ ফকরুল আলম খান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান ঘটনার ঐ দিন চারজন এবং এবং রেজাউল করিম মদুর মৃত্যু পর আরো দুজনকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয় পুলিশ। 

Share your love