মঠবাড়িযায় স্ত্রী হত্যার দায়ে ফাঁসির দন্ডপ্রাপ্ত স্বামী গ্রেফতার

পিরোজপুর প্রতিনিধি : পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় যৌতুকের দাবি তুলে
জেসমীন আক্তার নামে এক গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যার দায়ে ফাঁসির
দন্ডপ্রাপ্ত স্বামী আবুল কালাম( ৫৫)) কে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। শনিবার
(২২ ফেব্রুয়ারী) দুপুরে বরগুনার তালতলি উপজেলার কাজিরখাল গ্রাম থেকে
দ-িত কালামকে পুলিশ গ্রেফতার করে। ২০১৯ সালে ৩১ অক্টোবর পিরোজপুর
নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল আদালত স্ত্রীকে হত্যার দায়ে স্বামী
আবুল কালামের ফাঁসির দন্ডাদেশ প্রদান করে। সেই থেকে সে পলাতক অবস্থায় ছিলো।
গ্রেফতারকৃত আবুল কালাম শৌলা গ্রামের ইউনুস আলী হাওলাদার এর
ছেলে। নিহত গৃহবধূ জেসমিন আক্তার দুই সন্তানের জননী।
থানা ও স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে, ২০১৫ সালের ১২ সেপ্টেম্বর শৌলা
গ্রামের আবুল কালাম যৌতুকের দাবি তুলে দুই সন্তানের জননী জেসমিন
বেগমকে কে লাঠি দিয়ে নির্দয়ভাবে পিটিয়ে আহত করে। পরে পরিবারের
স্বজনরা তাকে প্রথমে মঠবাড়িয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও পরে খুলনা সদর
হাসপাতালে ভর্তি করে। সেখানে অবস্থার অবনতি ঘটলে আহত গৃহবধূকে
ঘটনার চারদিন পর উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নেওয়ার পথে ফরিদপুরের
ভাঙা নামক স্থানে মারা যান।
এ ঘটনায় নিহত গৃহবধূর ছোটভাই সাইফুল হক দুলাল বাদি হয়ে দুলাভাই
আবুল কালামকে আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।
মঠবাড়িয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক মো. আব্দুল হক জানান,পুলিশ এ মামলা
তদন্ত শেষে ঘটনার চারমাস পর আদালতে নিহত গৃহবধূর স্বামী আবুল
কালামকে অভিযুক্ত করে অভিযোগপত্র দাখিল করে। এ ঘটনার পর থেকে অভিযুক্ত
আবুল কালাম পলাতক থাকে। সে পুলিশ ও মামলা থেকে রেহাই পেতে গ্রাম
ছেড়ে বরগুনার তালতলি উপজেলার কাজিরখাল গ্রামে দ্বিতীয় বিয় করে নতুন
ঘর সংসার পেতে আত্মগোপন করে। ২০১৯ সালে ৩১ অক্টোবর পিরোজপুর নারী
ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল আদালত স্ত্রীকে হত্যার দায়ে স্বামী আবুল
কালামের ফাঁসির আদেশ দেয়।
এ বিষয়ে মঠবাড়িয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মো. মাসুদুজ্জামান ঘটনা
নিশ্চিত করে বলেন, ফাঁসির দ-িত আবুল কালামকে গ্রেফতার করা হয়েছে।
তাকে রবিবার আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হবে।

Share On