বিনোদুনিয়া

সালমান শাহর মৃত্যুর সুষ্ঠু বিচার চাই।সিয়াম আহমেদ

নায়ক তো বটেই, যদি অভিনেতার কথাও বলি, সালমান শাহ সেরাদের একজন। তিনি অভিনয় না করলে, তাঁর অভিনয় না দেখলে আমার মধ্যে হয়তো কখনোই সিনেমায় অভিনয়ের ইচ্ছা জাগত না। এমনকি আমি একটা ছবিও করেছি [পোড়ামন ২], যেখানে আমার চরিত্র [সুজন শাহ] সালমান শাহর অন্ধভক্ত। উনি যখন অভিনয় করতেন, তখন আমি অনেক ছোট। অভিনেতা হিসেবে শিশুদের মনে জায়গা করে নেওয়াটা কিন্তু সবচেয়ে কঠিন। কারণ শিশুরা কোনো যুক্তি মেনে বিচার করে কাউকে পছন্দ করে না। তাদের যেটা ভালো লাগে, সেটাই অন্ধের মতো পছন্দ করে। আমারও তেমন ছোটবেলায় উনাকে ভালো লেগে গিয়েছিল। সেটার কোনো ব্যাখ্যা-বিশ্লেষণ নেই। তাঁর মধ্যে একটা জাদু, ক্যারিসমা ছিল, যার জন্য তিনি খুব কম সময়ের মধ্যে মানুষের আপন হয়ে গেছেন, মানুষের কাছে পৌঁছাতে পেরেছেন। একজন অভিনেতাকে কিন্তু সর্বজনীন হতে হয়। তিনি সবার জন্যই অভিনয় করেন। সে জন্য এই ক্যারিসমাটা খুব দরকার, যেটা তাঁর ছিল। তাঁর অভিনীত অনেক ছবিই আমার খুব প্রিয়। বিশেষ করে ‘আনন্দ অশ্রু’, ‘বিচার হবে’, ‘কেয়ামত থেকে কেয়ামত’-এর কথা বলব। সালমান শাহর স্টাইল সেন্স খুব ভালো ছিল। যেভাবে সানগ্লাস পরতেন, লেদারের জ্যাকেট পরতেন, এককথায় দুর্দান্ত। আমি অনেকবার চেষ্টা করেছি, কিন্তু তাঁর মতো হয় না। উনার ব্যান্ডানা পরার ব্যাপারটাও খুব পছন্দ আমার। পরতে পারি না কারণ মনে হয় ওটা পরতে যে সাহস দরকার, আমার সেটা নেই, হা হা হা। তবে ‘পোড়ামন ২’-এর একটা গানে আমি তাঁর স্টাইলে তিন-চারটা লুক নিয়েছিলাম। একটা লুকে ব্যান্ডানাও পরেছিলাম। ছবিটা করার সময় ভেতর থেকে একটা ভালো লাগা কাজ করেছিল। ছোটবেলা থেকে বড় হওয়া পর্যন্ত আমার ঘরে একজন তারকারই পোস্টার লাগানো ছিল, তিনি সালমান শাহ। তাঁর মৃত্যুর সময়ে আমার বয়স ছয়-সাত বছর। বাবাকে বলেছিলাম একটা পোস্টার এনে দিতে। বাসার সবাই তাঁকে খুব পছন্দ করত। প্রথম যখন শুনেছিলাম উনি মারা গেছেন, ভালো মতো বুঝিইনি। পরে যখন বুঝতে পারি, তাঁর নতুন আর কোনো ছবি দেখতে পাব না, অনেক কেঁদেছিলাম। তাঁর রহস্যজনক মৃত্যুর এখনো সঠিক সমাধান হয়নি। দেশের বিচারব্যবস্থার প্রতি আমার বিশ্বাস আছে। ভক্ত হিসেবে আমি সালমান শাহর মৃত্যুর সুষ্ঠু বিচার চাই।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close