চকরিয়ার হারবাং ইউপি চেয়ারম্যান ও তিন নিরহ যুবকদের গরুচোর মহিলা কতৃক করা মিত্যা মামলা প্রত্যাহার চেয়ে দীর্ঘ এক কিলোমিটার এলাকা জুড়ে হাজার হাজার নারী-পুরুষের অংশগ্রহনে-মানববন্ধন।

সাইফুল ইসলাম, চকরিয়া প্রতিনিধিঃ

বহুল-আলোচিত চকরিয়ার হারবাং ইউনিয়নে গরু চোরের ঘটনাকে কেন্দ্র করে হারবাং ইউনিয়নের সম্মানিত চেয়ারম্যান জনাব মিরানুল ইসলাম ও গরু চোর মহিলা কতৃক মিত্যা মামলায় গ্রেফতার হওয়া গরুর মালিকসহ তিন যুবকের মুক্তি ও গরু চোর চক্রের সকল সদস্যদের শাস্তি নিশ্চিত করতে সেচ্চায় হাজার হাজার নারী-পুরুষ চট্টগ্রাম -কক্সবাজার মহাসড়কের দুই পাশে এক কিলোমিটার এলাকা জুড়ে  মানববন্ধনে অংশ নেন।

মানববন্ধনে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে বক্তারা বলেন এই হাজার হাজার ধর্ম বর্ণ ও ভিন্ন রাজনৈতির আদর্শের লোকেরাও অংশগ্রহন করে প্রমান করেন হারবাং ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কতটা জনপ্রিয় ও সফল চেয়ারম্যান।তার বিরুদ্ধে মিত্যা,বানোয়াট উদ্যোশ্যপ্রনোদিত হয়ে রাজনৈতিকভাবে হেয় করার উদ্দেশ্যে ষড়যন্ত্রমূলক মিত্যা মামলা করানো হয়েছে দাবী করেন মানববন্ধনে অংশ নেয়া সাধারণ জনগন।সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে বক্তারা বলেন যে মহিলা মামলা করেছেন সে এবং তার গংদের বিরুদ্ধে অতীতেও বিভিন্ন থানায় গরু চোরি সহ মাদক কারবারের মামলা রয়েছে যা সুশীল বক্তারা টকশোতে একবারও বলেননি।তারা টকশোতে কিভাবে একটি এলাকাকে ও একজন জনপ্রিয় চেয়ারম্যানকে মিত্যা অপবাদ দেয়া যায় তার চেষ্টা করা হয়েছে বলে অভিযোগ তুলেন।

বক্তারা আরো বলেন ‘যে সকল হলুদ মিডিয়া ঘটনাস্থলে না এসে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম থেকে তথ্য নিয়ে এই ঘটনায় চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে নিউজ প্রকাশ করেছেন তারা যেন এসে দেখে যান হারবাংয়ের মানুষ কি বলে।নাম প্রকাশ ছাড়া প্রর্ত্যেক্ষদর্শী সেজে যে ব্যাক্তিটি এলাকা ও চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মিত্যা বক্তব্য দিয়েছেন তার নিন্দা জানিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করতে দেখা গেছে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে ও সাধারণ মানুষের কাছ থেকে।

একজন জনপ্রিয় জনপ্রতিনিধির বিরুদ্ধে মিত্যা ভিত্তিহীন সংবাদ পরিবেশন করে সারা দেশের মানুষের কাছে চকরিয়াকে যারা কলঙ্কিত করেছে এলাকার সাধারণ মানুষ কখনো তাদের অপকর্মগুলো ক্ষমা করবেনা বলে জানান মানববন্ধনে অংশ নেওয়া সাধারণ জনগন।মানববন্ধনে পুরুষের পাশাপাশি নারীদের অংশগ্রহণ ছিল চোখে পড়ার মতো।হাজারো নারী পুরুষ রাজপথে বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ মিছিল করেছেন এবং মিত্যা মামলা থেকে চেয়ারম্যান সহ গরুর মালিক ও এলাকার দুই নিরপরাধ ব্যাক্তিকে অব্যাহতি না দিলে চকরিয়ার সাধারণ জনগন আবারো রাজপথে নামতে বাধ্য হবেন বলে হুশিয়ারী করেন।এই বৃহৎ আকারের মানববন্ধনে তিন হাজারের অধিক নারী পুরুষ অংশগ্রহণ করেন যা পুরো কক্সবাজারের সবচেয়ে বৃহৎ মানববন্ধন।

Share On